তাসকিনের হ্যাটট্রিক অত:পর বৃষ্টি || Ban vs SL 2nd ODI 2017 || Bangladesh Cricket News

Second ODI has been abandoned after Taskin’s hat-trick
The 2nd ODI between Sri Lanka and Bangladesh was abandoned due to heavy rain at the Rangiri Dambulla International Stadium. Bangladesh is leading the series 1-0.

Earlier Upul Tharanga won the toss and elected to bat first. Mashrafe Mortaza gave the first breakthrough to Bangladesh by dismissing Danushka Gunathilaka on 9. Upul Tharanga and Kusal Mendis added 111 runs in the 2nd wicket partnership. Tharanga was run out on 65.

After a while Mustafizur Rahman picked up the wicket of Dinesh Chandimal on 24. Kusal Mendis was gone for 102 after Taskin Ahmed took a fantastic catch of his own bowling. Milinda Siriwardana looked dangerous before Mehedi Hasan dismissed him on 30. Thisara Perera and Dilruwan Perera both were run out by Mushfiqur Rahim.

Taskin grabbed three wickets in a row in the last over to bowl Sri Lanka all out for 311. Taskin is the fifth Bangladeshi bowler to pick up a hat-trick in ODI after Shahadat Hossain, Abdur Rajjak, Rubel Hossain and Taijul Islam.

3rd and final match of the series will be held at Colombo on 1st April. Match will start at 10 am Bangladesh time.

The second ODI between Bangladesh and Sri Lanka has been abandoned due to persistent rain at Dambulla.

The match was sizing up for a good contest after Kusal Mendis’ gritty century powered the hosts to 311 with Taskin Ahmed capping it off with a hat-trick for Bangladesh at the Rangiri Dambulla International Stadium on Tuesday.

Mendis smashed a mature 102 before pacer Taskin Ahmed grabbed a hat-trick to bowl Sri Lanka out for 311 in 49.5 overs after being asked to field at the

Taskin (4-47) became the fifth Bangladeshi bowler to pick up an ODI hat-trick.

ডাম্বুলায় বৃষ্টিতে ভেসে গেল বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার দ্বিতীয় ওয়ানডে। বাংলাদেশের স্থানীয় সময় রাত সোয়া নয়টার দিকে ম্যাচ পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। প্রথমে ব্যাটিং করে ৩১১ রান তুলেছিল শ্রীলঙ্কা। এই ম্যাচে বাংলাদেশের প্রাপ্তি হয়ে থাকল তাসকিন আহমেদের হ্যাটট্রিক। বাংলাদেশর আর ব্যাটিংয়েই নামা হয়নি।

অবশ্য আরও একটি প্রাপ্তিযোগ আছে। আর যা–ই হোক, তিন ম্যাচ সিরিজে বাংলাদেশ যে হারবে না, তা নিশ্চিত হলো। ১ এপ্রিল কলম্বোতে সিরিজের শেষ ম্যাচ। বাংলাদেশ নিশ্চয়ই চাইবে, ম্যাচটা জিতে ট্রফি দেশে নিয়ে আসতে। টেস্ট সিরিজ অবশ্য ১-১-এ ভাগাভাগি হয়েছে।
ম্যাচ না হওয়ায় দুই দলই হয়তো হতাশ। শ্রীলঙ্কা ভাবতে পারে, এত রান করেও ম্যাচটা জেতা হলো না। শ্রীলঙ্কায় এর আগে কোনো দলই ৩০০ রান তাড়া করে জেতেনি।
বাংলাদেশও হতাশ হতে পারে। শ্রীলঙ্কায় এখন পর্যন্ত প্রথমে ব্যাট করে তিন শর বেশি রান তুলে একবার কোনো দল হেরেছিল। ২০১৩ সালের সেই ওয়ানডেতে পরাজিত দলের নাম ছিল শ্রীলঙ্কা, বিজয়ী বাংলাদেশ। বৃষ্টির কারণে সেবার ২৭ ওভারে বাংলাদেশের নতুন লক্ষ্য স্থির হয়েছিল ১৮৩। ৩ উইকেট হাতে রেখে ম্যাচটা জিতেছিল বাংলাদেশ। কাকতালীয় ব্যাপার হলো, সেদিনই তারিখটা ছিল ২৮ মার্চ।
কী হতে পারত—এ নিয়ে আর আক্ষেপই শুধু করা যায়। তবে বাংলাদেশের ক্ষতিটা হলো আরেক দিক দিয়ে। র‍্যাঙ্কিংয়ে ছয়ে ওঠার সুযোগটাও বৃষ্টিতে ভেসে গেল। বাংলাদেশ ২-০তে সিরিজ জিতলেও র‍্যাঙ্কিংয়ে থাকতে হবে সাতে।

Leave a Reply

%d bloggers like this: